• জুন ১৬, ২০২১

চাকরির বয়স চলে যাচ্ছে অনেকের, ‘উদ্বিগ্ন’ তরুণরা

এক বছরেরও বেশি সময় ধরে করোনা মহামারির জন্য সরকারি চাকরির বাজার স্থবির হয়ে আছে। সরকারি বিধিনিষেধের কারণে পরীক্ষা অনিদিষ্টকালের জন্য পিছিয়ে যাওয়ায় শিক্ষিত বেকাররা পড়েছেন মহাবিপাকে।
বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস) বলছে, মাধ্যমিক থেকে স্নাতকোত্তর পাশ করা এক-তৃতীয়াংশ তরুণই বেকার। করোনাকালে এই সংখ্যা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। এর বিপরীতে চাকরির নির্ধারিত বয়স অনেকেরই চলে যাচ্ছে।

প্রতিষ্ঠানটির সর্বশেষ গবেষণা অনুযায়ী, দেশের ৩৩ দশমিক ৩২ শতাংশ শিক্ষিত তরুণ সম্পূর্ণ বেকার। বাকিদের ৪৭ দশমিক ৭ শতাংশ রয়েছে সার্বক্ষণিক চাকরিতে। এ ছাড়া পার্টটাইম বা খণ্ডকালীন কাজ করছে ১৮ দশমিক ১ শতাংশ তরুণ।

বিধিনিষেধের কারণে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়া হচ্ছে না, আগের দেয়া বিজ্ঞপ্তির পরীক্ষাও স্থগিত রয়েছে। কবে নাগাদ এই পরিস্থিতির উত্তরণ ঘটবে, তা কারো জানা নেই। এমতাবস্থায় শিক্ষিত বেকাররা তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে চরম অনিশ্চয়তায় পড়েছেন।

জানা গেছে, রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক, গোয়েন্দা সংস্থা, সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি), সেতু বিভাগ, তিতাস গ্যাসসহ অনেকগুলো প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ পরীক্ষা আটকে আছে। এগুলো কবে নাগাদ নেয়া হবে, তা কারো জানা নেই।
সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা বলছেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত পরীক্ষা নেয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই নিয়োগ প্রক্রিয়া ফের চালু করা হবে।

সরকারি চাকরির নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের (পিএসসি) সব ধরনের পরীক্ষা ও নিয়োগ বন্ধ রয়েছে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে এমন সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে বলে বলছেন সংস্থাটির কর্মকর্তারা।

এ বিষয়ে পিএসসির চেয়ারম্যান মো. সোহরাব হোসাইন বলেন, করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সকল নিয়োগ পরীক্ষা অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। কবে আবার তা শুরু করা যাবে, তা এখনই বলা যাচ্ছে না।

জাতিসংঘ উন্নয়ন সংস্থার (ইউএনডিপি) মানব উন্নয়ন সূচক বলছে, ২০৩০ সাল নাগাদ বাংলাদেশে কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যা বেড়ে ১২ কোটি ৯৮ লাখে দাঁড়াবে। এই সংখ্যা হবে দেশের জনগোষ্ঠীর ৭০ শতাংশ। বিশাল এই জনমিতির সুফল কাজে লাগাতে উপযুক্ত কর্মসংস্থান সৃষ্টির তাগিদ দেয়া হয়েছে।

READ  এক লাখ শিক্ষক নিয়োগের আয়োজন

উল্লেখ্য, গত বছরের ৮ মার্চ দেশে করোনার রোগী প্রথম শনাক্ত হয়, ভাইরাসটিতে প্রথম মৃত্যু ঘটে ১৮ মার্চ। সেই থেকে এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ৫১ হাজার ৬৫৯ জনে, মৃত্যু হয়েছে ১১ হাজার ২২৮ জনের।

Pial

Read Previous

রমজানে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করবে বেলের শরবত

Read Next

দ্বিতীয় টেস্টেও অপরিবর্তিত বাংলাদেশ দল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *