• জুন ২৩, ২০২১

পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতায় আসছে বিজেপি,মুখ্যমন্ত্রী দিলীপ ঘোষ

আগামী ২ মে ঘোষিত হবে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল । কাল অনুষ্ঠিত হবে ৫ম দফার ভোট গ্রহণ । ইতিমধ্যে চার দফায় মোট ১৫৪ টি বিধানসভা আসনের ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে। প্রথম তিন দফায় ভোট গ্রহণ মোটামুটি শান্তিপূর্ণ ভাবে অনুষ্ঠিত হলেও চর্তুথ দফার ভোটের দিন শীতলকুচিতে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে। এতে ভারতের কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে চার জন ও বিজেপি-তৃলমুল সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছে। যদিও বিজেপির দাবী তৃণমূলের সমর্থকরদের হামলায় তাদের এক সমর্থক নিহত হয়েছে। এ নিয়ে রাজ্য রাজনীতি ও ভোটের মাঠে তৃলমুল ও বিজেপি উভয় একে অপরকে দোষারপ করছে।

এদিকে কাল পশ্চিমবঙ্গের বিধান সভার মোট ৪৫ টি কেন্দ্রে মোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে । এই ভোট গ্রহণের নিরাপত্তা বিধানের জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রায় এক লাখ সদস্য মোতায়েন থাকবে। শীতলকুচির ঘটনার পর নির্বাচন কমিশন বাড়তি সর্তকতামুলক ব্যাবস্থা গ্রহণের অংশ হিসেবে এই বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সদস্য মোতায়েন করছে বলে মনে করছেন পশ্চিমবঙ্গের বিশিষ্ট সাংবাদিক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

এই ব্যাপারে কোলকাতা থেকে প্রকাশিত দৈনিক আজকালের প্রধান প্রতিবেদক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক সাংবাদিক তরুন চক্রবর্তী ভোরের ডাককে বলেন, স্বাভাবিক ভাবে শীতলকুচির ঘটনার পর নির্বাচন কমিশন সামনের ভোট গ্রহণের দিনগুলোতে বাড়তি সর্তকর্তা মুলক ব্যাবস্থা নিচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে পঞ্চম দফার ভোট গ্রহণের দিনে প্রায় এক লাখ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য ভোট কেন্দ্র এলাকায় মোতায়েন থাকছে।

খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, এবারই প্রথম বারের মতো পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে ভারতীয় জনতা পার্টি মুল প্রতিদ্বন্ধিতায় এসেছে। ২০১৬ সালে পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি মাত্র ৩ আসনে জয় লাভ করে। ঐ নির্বাচনে ২১১ আসন নিয়ে দ্বিতীয় বারের মত রাজ্যে সরকার গঠন করে মমতা বন্ধোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেস। ঐ নির্বাচনে বাম-কংগ্রেস জোট পায় ৭৭ টি আসন আর অন্যরা পায় আরো তিনটি আসন। মাত্র পাঁচ বছর আগে যে বিজেপি মাত্র তিনটি আসনে জয়লাভ করে, সেই বিজেপি কাল পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনে লড়ছে সরকার গঠন করার জন্য।

READ  পোকখালী যুবলীগ সম্মেলনে ক্লিন ইমেজ প্রার্থী হিসেবে ইত্তেহাদ এগিয়ে

ভারতীয় জনতা পার্টির শীর্ষনেতারা দাবি করছেন এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বিজেপি দুইশ আসন নিয়ে প্রথমবারের মতো পশ্চিমবঙ্গের সরকার গঠন করতে যাচ্ছে। যদিও তৃণমুল কংগ্রেস বিজেপির এই বক্তব্যকে হাস্যকর দাবি করে বলেছেন ,দুইশর বেশি আসন নিয়ে তৃতীয় বারের মতো ক্ষমতা আসছে তৃণমুল কংগ্রেস। আর আবারো মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন মমতা ব্যানার্জী।

তবে পশ্চিমবঙ্গের একাধিক রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলে, আর বিগত তিন মাসের বেশি সময় ধরে পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচন কেন্দ্রীক বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের কর্মকান্ড পর্যবেক্ষন করে দেখা গেছে, এবার পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনে ক্ষমতায় আসতে পারে বিজেপি। প্রায় ১৬৫ থেকে ১৭০ আসন নিয়ে প্রথমবারের মতো পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য বিধানসভায় সংখ্যাগরিষ্টতা নিয়ে রাজ্য সরকার গঠন করতে পারে ভারতীয় জনতা পার্টি-বিজেপি। আর বিজেপি সরকার গঠন করতে পারলে ঐ সরকারের মূখ্যমন্ত্রী হবেন রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

এই ব্যাপারে কোলকাতা থেকে প্রকাশিত আনন্দবাজার পত্রিকার সহকারী সম্পাদক অনামিত্র চট্টোপাধ্যায় ভোরের ডাককে বলেছেন, আমি পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন গ্রামে ঘুরে দেখেছি, এবার হাওয়া বিজেপির দিকে । আর বিজেপি একক সংখ্যাগরিষ্টতা নিয়ে ক্ষমতা আসলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। আর বিজেপি ক্ষমতায় আসলে দিলীপ ঘোষ হতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিকে খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, দিলীপ ঘোষের কর্মকান্ডে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী থেকে শুরু করে মোদীর সেনাপতি হিসেবে পরিচিত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জগৎ প্রকাশ নাড্ডা বেশ সন্তুষ্ট। বিগত পাঁচ বছরে রাজ্য বিজেপিকে সুসংগঠিত করার পেছনে দিলীপ ঘোষের রয়েছে ব্যাপক অবদান । স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী প্রকাশ্যে জনসভায় তা স্বীকার করে দীলিপ ঘোষের প্রশংসা করেছেন। রাষ্ট্রীয় সয়ং সেবক সংঘের সাবেক কর্মী হিসেবে আর এস এসের পূর্ণ সমর্থনও রয়েছে দীলিপ ঘোষের ওপর । তাই ২ রা মে পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি ক্ষমতায় আসলে দিলীপ ঘোষই হবেন মুখ্যমন্ত্রী তা অনেকটা নিশ্চিত। যদিও শুভেন্দু অধিকারী, অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী ও ক্রিকেটার সৌরভ গাঙ্গুলীর নামও আলোচনা রয়েছে মুখ্যমন্ত্রী পদের তালিকায়।

READ  ইতিহাস গড়লেন প্রধানমন্ত্রী, ঘর উপহার দিলেন ৭০ হাজার গৃহহীন পরিবারকে

এদিকে কোলকাতার বিভিন্ন সোস্যাল মিডিয়া ও জরিপ সংস্থা থেকে প্রচারিত জরিপে দেখা গেছে ২৭ মার্চ প্রথম দফার যে ৩০ টি আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে তার মধ্যে থেকে ২২ টি আসনে বিজেপি, ৬ টি তৃণমূল ও ২ টি বাম-কংগ্রেস ও আব্বাস সিদ্দীকির ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট সম্বয়নের জোট সংযুক্ত মোর্চা ২ টি আসনে জয় লাভ করতে পারে বলে সমিক্ষায় উঠে এসেছে। একই ভাবে ১ এপ্রিল দ্বিতীয় দফায় যে ৩০টি আসনে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে সেখানে বিজেপি ২৩ টি ও তৃণমুলের ৭টি আসনে জয়লাভের সম্ভাবনার কথা বলছে বিভিন্ন জরিপ

সংস্থা। এই দ্বিতীয় দফার ভোটে নন্দীগ্রামের তৃণমূল প্রার্থী মমতা ব্যানার্জীর বিরুদ্ধে বিজেপির হয়ে লড়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। এই আসনে হাড্ডাহাড্ডি লড়ায়ের আভাস পাওয়ায় গেলেও শেষ হাসি শুভেন্দুই হাসবেন বলে দাবি করছেন বিজেপির কর্মী সমর্থকরা। তবে তৃণমূল বলছে, এই আসনে মমতা ব্যানার্জীই জয় হবেন বিপুল ভোটে। তৃতীয় দফার ভোট অনুষ্ঠিত হয় ৬ এপ্রিল। মোট ৩১ টি বিধানসভা কেন্দ্রে এই ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। আর ১০ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হয় চতুর্থ দফার ভোট গ্রহণ। মোট ৪৪ টি আসনে চতুর্থ দফায় ভোট গ্রহণ অনুষ্টিত হয় । এর মধ্যে তৃতীয় দফায় ৩১ টি আসনের মধ্যে বিজেপি ১৩, তৃণমুল ১৪ ও সংযুক্ত মোর্চা ৪ টি আসনে জয়লাভ করার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানা গেছে।

অপরদিকে চতুর্থ দফায় যে ৪৪ টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয় এর মধ্যে ২৬টিতে বিজেপি, ১১ টিতে তৃণমূল ও ৭ টি সংযুক্ত মোর্চা জয়লাভের সম্ভাবনার কথা বলছে কোলকতা ভিত্তিক বিভিন্ন জরিপ পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান।

কাল পঞ্চম দফায় যে ৪৫ টি আসনে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে, এর মধ্যে ৩১ টি আসনে বিজেপি , ৯টি আসনে তৃণমুল ও সংযুক্ত মোর্চা ২ টি আসনে এগিয়ে থাকতে পারে বলে জানা গেছে। ২২ এপ্রিল ৬ষ্ট , ২৬ এপ্রিল সপ্তম ও অষ্টম দফার ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ২৯ এপ্রিল। এই তিন দফায় মোট ১১৪ টি আসনে ভোট গ্রহণ অনুষ্টিত হবে। এর মধ্যে বিজেপি ৫৩ টি, তৃণমূল ৪৬ ও সংযুক্ত মোর্চা ১৮ টি আসনে বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানা গেছে।

READ  বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ আইসিইউতে

প্রচার-প্রচারনায় অনেক এগিয়ে বিজেপি: এবার অনেকটা আগে ভাগেই পশ্চিমবঙ্গে ব্যাপক প্রচার চালিয়েছে বিজেপি যা এখানো সমান তালে অব্যাহত রয়েছে। পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি সমর্থিত প্রাথীদের্র সমর্থনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংহ, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা, উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানী, রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীয় ঘোষ, অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী শুভেন্দু অথিকারীর মতো তারকা রাজনীতিবিদরা ব্যাপক প্রচার চালাচ্ছেন। প্রায় প্রতিদিনই একাধিক রোড শো ও জনসভা করছেন বিজেপির শীর্ষ নেতারা। এইসব রোড শো ও জনসভায় সাধারণ মানুষের উপস্থিতিও হচ্ছে ব্যাপক। তার বিপরীতে তৃণমুলের হয়ে মমতা ব্যানার্জী, অভিষেক বন্দোপাধ্যায়, অভিনেতা দেব প্রচার চালাচ্ছেন। এছাড়া জয়া বচ্চন তৃণমুলের হয়ে প্রচারে রাজ্যে আসলেও তেমন সাড়া ফেলতে পারেনি।

Pial

Read Previous

শক্তিশালী পাসপোর্টের তালিকায় এক ধাপ এগোলো বাংলাদেশ

Read Next

করোনায় দেশে প্রথম শতাধিক লোকের মৃত্যু

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *