• জুন ২২, ২০২১

বিশ্বে অস্ত্র বিক্রিতে এক নম্বরে আমেরিকা, ক্রেতা সৌদি আরব

বিশ্বে অস্ত্র বিক্রির ক্ষেত্রে এক নম্বরে রয়েছে আমেরিকা, আর দুইয়ে রাশিয়া ও তিনে ফ্রান্স। এর প্রায় অর্ধেক অস্ত্রের বড় চালান যায় মধ্যপ্রাচ্যে। তবে এই অস্ত্রে ক্রেতা হিসেবে বিশ্বে শীর্ষে রয়েছে সৌদি আরব। খরব ডয়েচে ভেলের।

২০১৬ থেকে ২০২০ এর মধ্যে মধ্যপ্রাচ্যে অস্ত্র কেনার পরিমাণ তার আগের দশ বছরের তুলনায় প্রায় ২৫ শতাংশ বেড়েছে। আর সৌদি আরব এখন বিশ্বের সব চেয়ে বড় অস্ত্র ক্রেতা। তাদের অস্ত্র কেনার পরিমাণ ৬১ শতাংশ বেড়েছে। কাতারের অস্ত্র কেনার পরিমাণ বেড়েছে বহুগুণ।

স্টকহোম ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের প্রতিবেদনে দেখা গেছে, আমেরিকা ২০০১ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে যা অস্ত্র বিক্রি করত এখন তার তুলনায় ১৫ শতাংশ বেশি করছে। ২০১৬ থেকে ২০২০ এর মধ্যে বিশ্বে মোট যত অস্ত্র বিক্রি হয়েছে, তার ৩৭ শতাংশ করেছে আমেরিকা। মোট ৯৬টি দেশের কাছে অস্ত্র বিক্রি করেছে তারা। তবে তাদের অস্ত্রের সব চেয়ে বড় ক্রেতা মধ্যপ্রাচ্য। আর মধ্য প্রাচ্যের দেশগুলির মধ্যে সবচেয়ে বেশি অস্ত্র কেনে সৌদি আরব। ফলে তারাই বিশ্বের সব চেয়ে বড় অস্ত্রের ক্রেতা। খবর ডয়েচে ভেলের।

প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়, ২০১৬ থেকে ২০২০ পর্যন্ত সময়ে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে অস্ত্র বিক্রির পরিমাণ বাড়েনি। তার আগের এক দশক ধরে অবশ্য অস্ত্র বিক্রি সমানে বেড়েছে। এটা হওয়ার মূল কারণ, চীন ও রাশিয়া থেকে অস্ত্র কেনা কমেছে। রাশিয়ার অস্ত্র বিক্রির পরিমাণ কম হওয়ার কারণ, ভারত সেদেশ থেকে অনেক কম অস্ত্র কিনছে। ফলে আমেরিকা, ফ্রান্স, জার্মানি থেকে অস্ত্র বিক্রির পরিমাণ বাড়লেও সামগ্রিকভাবে অস্ত্র বিক্রির পরিমাণ বাড়েনি।

এদিকে সংযুক্ত আরব আমিরাত সম্প্রতি আমেরিকার কাছ থেকে ৫০টি এফ ৩৫ জেট কেনার জন্য চুক্তি করেছে। তারা ১৮টি সশস্ত্র ড্রোনও কিনছে। দুই হাজার ৩০০ কোটি ডলার দিয়ে এই অস্ত্র কিনছে আমিরাত। এশিয়া ও ওশিয়ানিয়ার দেশগুলি বেশি অস্ত্র কেনে। ২০১৬ থেকে ২০২০ সালের মধ্যে অস্ত্রের ৪২ শতাংশ কেনা হয়েছে এখান থেকে। কিনেছে ভারত, চীন, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া ও পাকিস্তান।

READ  মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে রাজপথে লাখো মানুষ

সিপরি’র এক গবেষক বলেছেন, এশিয়া, ওশিয়ানিয়ার অনেক দেশই চীনকে বিপদের কারণ বলে মনে করায় তারা অস্ত্র কিনছে। তবে করোনার ফলে অস্ত্র কেনাবেচা কমেছে কি-না, তা বলার সময় এখনও আসেনি। করোনা প্রতিটি দেশের অর্থনীতিকে ধাক্কা দিয়েছে। তাই অনেক দেশই হয়ত অস্ত্র কেনার বিষয়টি খতিয়ে দেখছে।

Pial

Read Previous

জোড়া গোল করে নতুন রেকর্ডে মেসি

Read Next

মওদুদ আহমদ আর নেই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *