• জুন ১১, ২০২১

যেভাবে ধর্মীয় বিষয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়

খোলাফায়ে রাশেদিনের শেষ সময় থেকে মুসলিম বিশ্বে বিভিন্ন শ্রেণির বিভ্রান্ত দলের উদ্ভব হয়। তাদের বিভ্রান্তিকর কর্মকাণ্ডের ফলে ঈমানহারা হয়েছে বহু মানুষ। রাসুলুল্লাহ (সা.) ধর্মীয় বিষয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টির ব্যাপারে বলেন, ‘পরবর্তী প্রত্যেক প্রজন্ম থেকে এই জ্ঞান এমন ন্যায়নিষ্ঠ ব্যক্তিরা বহন করবে, যারা তাকে রক্ষা করবে প্রান্তিক চিন্তাধারীদের বিকৃতি থেকে, পথভ্রষ্টদের জালিয়াতি ও মূর্খদের ব্যাখ্যা থেকে।’ (মুসনাদে আহমদ)

বিভ্রান্তির চার কারণ

উল্লিখিত হাদিসে রাসুলুল্লাহ (সা.) তিনটি কারণ চিহ্নিত করেছেন, যার মাধ্যমে ধর্মীয় বিষয়ে বিভ্রান্তি ও বিকৃতি তৈরি হয়।

১. প্রান্তিকতা : ধর্মীয় বিষয়ে প্রান্তিকতা হলো কোনো বিষয়ে অতি শিথিলতা বা অতি কঠোরতা। উভয় শ্রেণি ইসলামী বিধি-বিধানের ব্যাপারে ভারসাম্য রক্ষা করে না। ইসলাম বিশ্বাস, ইবাদত ও মতাদর্শসহ সব বিষয়ে সব ধরনের প্রান্তিকতা পরিহারের নির্দেশ দিয়েছে। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘বলুন হে কিতাবিরা, তোমরা তোমাদের দ্বিনের ব্যাপারে অন্যায়ভাবে বাড়াবাড়ি করো না এবং যে সম্প্রদায় ইতিপূর্বে পথভ্রষ্ট হয়েছে, বহুজনকে পথভ্রষ্ট করেছে ও সরল পথ থেকে বিচ্যুত হয়েছে তাদের খেয়াল-খুশির অনুসরণ কোরো না।’ (সুরা মায়িদা, আয়াত : ৭৭)

২. জালিয়াতি : বিভ্রান্ত দলগুলো ইসলামের নামে এমন বহু কিছুর প্রচলন ঘটাতে চেয়েছে, যা কোনো স্থান ইসলামে নেই, যা পুরোপুরি ভিত্তিহীন। বিভ্রান্ত দলগুলোর জালিয়াতি ও অপপ্রচারে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি আমার নামে মনগড়া কথা রচনা করল যা আমি বলিনি, সে যেন তার বাসস্থান জাহান্নামে নির্ধারণ করল।’ (সুনানে নাসায়ি, হাদিস : ৩৪)

৩. মূর্খদের ব্যাখ্যা : ধর্মীয় বিষয়ে জ্ঞান না থাকার পরও সামাজিক অবস্থান, রাজনৈতিক ক্ষমতা ও জাগতিক বিষয়ে পাণ্ডিত্য থাকার কারণে কেউ কেউ ইসলামের বিধি-বিধানের ব্যাখ্যা দেওয়ার চেষ্টা করে। আর তা করতে দিয়ে তারা ভুল ও বিচ্যুতির শিকার হয়। পবিত্র কোরআনে এসব ব্যক্তির ব্যাপারে বলা হয়েছে, ‘অথচ এ বিষয়ে তাদের কোনো জ্ঞান নেই। তারা তো শুধু অনুমানেরই অনুসরণ করে। কিন্তু সত্যের মোকাবেলায় অনুমানের কোনোই মূল্য নেই।’ (সুরা নাজম, আয়াত : ২৮)

READ  মসজিদের অতীত ও বর্তমান

৪. বিদআত : দ্বিনের ব্যাপারে বিভ্রান্তি সৃষ্টির অপর মাধ্যম হলো বিদআত। ইসলামী পরিভাষায় বিদআত হলো এমন কোনো কিছুকে দ্বিন ও ইবাদত মনে করে পালন করা, যার ভিত্তি ইসলামী শরিয়তের স্বীকৃতি কোনো উৎস পাওয়া যায় না। মানুষ বিদআতকে ভালো মনে করলেও তার পরিণতি সব সময় মন্দ হয়। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘বিষয়গুলোর মধ্যে নব-উদ্ভাবিত বিষয়গুলোই নিকৃষ্ট। প্রত্যেক নব-উদ্ভাবিত বিষয় বিদআত আর প্রত্যেক বিদআত বিভ্রান্তি, প্রত্যেক বিভ্রান্তি পথভ্রষ্টতা, যা জাহান্নামের কারণ।’ (সুনানে নাসায়ি, হাদিস : ১৫৭৮)

বিভ্রান্তি থেকে বাঁচার উপায়

উল্লিখিত বিভ্রান্তির চারটি কারণ পরিহারে ইসলামের নির্দেশনা হলো—

১. মধ্যপন্থা অবলম্বন করা : কঠোরতা ও শিথিলতার মতো প্রান্তিকতার বিপরীতে ইসলাম মধ্যপন্থা অবলম্বনের নির্দেশ দেয়। রাসুল (সা.) বলেন, তোমরা আমলে মধ্যপন্থা অবলম্বন করো, বাড়াবাড়ি করো না। সকাল-সন্ধ্যায় (ইবাদতের জন্য) বের হয়ে পড়ো এবং রাতের কিছু অংশেও। তোমরা অবশ্যই পরিমিতি রক্ষা করো। তাহলে গন্তব্যে পৌঁছতে পারবে।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৬৪৬৩)

২. দ্বিনচর্চায় সনদকে গুরুত্ব দেওয়া : দ্বিনচর্চায় সনদের গুরুত্ব দিলে বিভ্রান্ত মানুষের জালিয়াতি থেকে আত্মরক্ষা করা সহজ হবে। পূর্ববর্তী আলেমরা জ্ঞানচর্চায় ‘সনদ’ বা পরম্পরা রক্ষার প্রতি গুরুত্বারোপ করেছেন। আবদুল্লাহ ইবনে মোবারক (রহ.) বলেছেন, ‘সনদগ্রহণ (পরম্পরা রক্ষা) দ্বিনের অংশ। যদি সনদ না থাকত তবে যার যা ইচ্ছা সে তাই বলত।’ (ভূমিকা, সহিহ মুসলিম)

সুফিয়ান সাওরি (রহ.) বলেন, ‘সনদ মুমিনের হাতিয়ার। যার কাছে হাতিয়ার নেই তাকে যে কেউ হত্যা করতে পারে।’ (আল ওয়াদউ ফিল হাদিস : ২/২৯)

৩. গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি থেকে জ্ঞানার্জন : মূর্খ ব্যক্তিদের ভ্রান্ত ব্যাখ্যা পরিহার করতে হবে। এ বিষয়ে মুহাম্মদ ইবনে সিরিন (রহ.) বলেন, ‘নিশ্চয়ই এ জ্ঞান দ্বিনের অংশ। সুতরাং কার কাছ থেকে তোমরা তোমাদের দ্বিন গ্রহণ করছ তা লক্ষ্য রাখো।’ (আল কামিল : ১/২৫৪)

আর ধর্মীয় জ্ঞানে পিছিয়ে থাকা ব্যক্তিদের প্রতি নির্দেশনা হলো ‘যে বিষয়ে তোমার জ্ঞান নেই তার অনুসরণ করো না; কান, চোখ, হৃদয়—তাদের প্রত্যেকটি সম্পর্কে কৈফিয়ত তলব করা হবে।’ (সুরা বনি ইসরাইল, আয়াত : ৩৬)

READ  প্রতিবেশীর অধিকার রক্ষার উপকারিতা

৪. কোরআন-সুন্নাহর অনুসরণ : ইসলাম বিদআতের পরিবর্তে কোরআন-সুন্নাহ অনুসরণের নির্দেশনা দিয়েছে। ইরশাদ হয়েছে, ‘রাসুল তোমাদের কাছে যা নিয়ে এসেছে তা অনুসরণ করো এবং যা থেকে নিষেধ করেছেন তা থেকে বিরত থাকো। আল্লাহকে ভয় করো, নিশ্চয়ই আল্লাহ শাস্তিদানে কঠোর।’ (সুরা হাশর, আয়াত : ৭)

বিভ্রান্তি থেকে দ্বিন যেভাবে রক্ষা পায়

নানাভাবে ধর্মীয় বিষয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হলেও আল্লাহ তাআলা ইসলামকে বিভ্রান্তি থেকে রক্ষা করেছেন। ইসলামে বিশুদ্ধতা রক্ষা পায় প্রধানত দুই ভাবে। এক. কোরআন-সুন্নাহ সংরক্ষণের মাধ্যমে। কেননা আল্লাহ সরাসরি কোরআনকে এবং তার ব্যাখ্যা হিসেবে সুন্নাহকে রক্ষা করেছেন। আর ইসলামের মূল ভিত্তি বা স্তম্ভ হলো কোরআন ও সুন্নাহ। কোরআন সংরক্ষণের ব্যাপারে ইরশাদ হয়েছে, ‘নিশ্চয়ই আমি কোরআন অবতীর্ণ করেছি এবং আমিই তা সংরক্ষণকারী।’ (সুরা হিজর, আয়াত : ৯)

দুই. সচেতন আলেম সমাজের মাধ্যমে। রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘পরবর্তী প্রত্যেক প্রজন্ম থেকে এই জ্ঞান এমন ন্যায়নিষ্ঠ ব্যক্তিরা বহন করবে, যারা তাকে রক্ষা করবে প্রান্তিক চিন্তাধারীদের বিকৃতি থেকে, পথভ্রষ্টদের জালিয়াতি ও মূর্খদের ব্যাখ্যা থেকে।’ (মুসনাদে আহমদ)

আল্লাহ সবাইকে বিভ্রান্তির হাত থেকে রক্ষা করুন। আমিন।

লেখক : সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা,

বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট, ঢাকা।

Pial

Read Previous

দ্বিতীয় ওয়েভ দেখা যাচ্ছে, স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে চলুন: প্রধানমন্ত্রী

Read Next

সবচেয়ে সুখী দেশ ফিনল্যান্ড, বাংলাদেশ ৬৮তম অবস্থানে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *