• সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১

হোয়াইট হাউসের ভেতরটা কেমন?

আগামী চার বছরের জন্য হোয়াইট হাউসের অধিপতি হতে যাচ্ছেন জো বাইডেন। ১৮০০ সালে প্রতিষ্ঠার পর যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিতীয় প্রেসিডেন্ট জন অ্যাডামস থেকে শুরু করে ডোনাল্ড ট্রাম্প—সবাই বাস করেছেন এই সাদা ভবনে। বাইরে থেকে হোয়াইট হাউসের চিত্র হয়তো অনেকেরই পরিচিত। কিন্তু সুবিশাল সাদা এই ভবনের ভেতরটা কেমন? মার্কিন প্রেসিডেন্টরা কোথায় ঘুমান? কোথায় গোপন বৈঠক করেন? কোথায়ই–বা সিনেমা দেখেন?একনজরে হোয়াইট হাউস ১. হোয়াইট হাউস দাঁড়িয়ে আছে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসি শহরের ১৬০০ পেনসিলভানিয়া অ্যাভিনিউতে। ২. পুরো ভবনটি মূলত তিনটি আলাদা ভাগে বিভক্ত—ওয়েস্ট উইং, ইস্ট উইং ও এক্সিকিউটিভ রেসিডেন্স। ৩. ভবনের মোট আয়তন প্রায় ৫৫ হাজার বর্গফুট। ৪. ১৩২টি কক্ষ, ৩৫টি শৌচাগার ও ৩টি রান্নাঘর আছে এতে। ৫. থিয়েটার হল, সুইমিং পুল, টেনিস কোর্ট, গলফ কোর্ট ও জগিং ট্র্যাকও আছে। ৬. এর দরজার সংখ্যা ৪১২ এবং জানালা ১৪৭টি। ৭. ওঠানামার জন্য আছে ৮টি সিঁড়ি এবং ৩টি লিফট। ৮. ভবনগুলোর বাইরের পুরো অংশ রং করতে প্রায় ৫৭০ গ্যালন রং লাগে।

ওয়েস্ট উইং দিয়েই শুরু করা যাক। চারতলা এই ভবনে রয়েছে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ দপ্তর। তার মধ্যে অন্যতম হলো প্রেসিডেন্টস রুম, ওভাল অফিস ও কেবিনেট রুম। আগে প্রেসিডেন্টস রুমে সেক্রেটারি দপ্তর ও প্রেসিডেন্টের দপ্তর ছিল। বর্তমানে এই কক্ষ ডাইনিং রুম বা খাবার ঘর হিসেবে ব্যবহার করা হয়। ওভাল অফিসটি বর্তমানে প্রেসিডেন্টের প্রধান দপ্তর। ডিম্বাকৃতির এই কক্ষের জানালাগুলো বুলেটপ্রুফ কাঁচ দিয়ে তৈরি। কক্ষটির অন্দরসজ্জা ও আসবাব প্রেসিডেন্টের পছন্দ অনুযায়ী নির্ধারণ করা হয়।ওভাল অফিসের বাইরে ডান দিকে হোয়াইট হাউস রোজ গার্ডেন। এটি বিশেষ অনুষ্ঠান এবং বিশেষ অতিথিদের জন্য ব্যবহার করা হয়।কেবিনেট রুমে প্রেসিডেন্ট তাঁর মন্ত্রীসভার সঙ্গে বৈঠক করেন। হোয়াইট হাউসের রীতি অনুযায়ী প্রেসিডেন্ট সব সময় টেবিলের মাঝখানে বসেন।

গ্রাউন্ড ফ্লোরে আছে সিচুয়েশন রুম। ৫ হাজার বর্গফুটের এই ঘরে প্রেসিডেন্ট আসেন সমস্যার মুখোমুখি হলে। এখানে তিনি বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে শলাপরামর্শ করেন। সিচুয়েশন রুম চালান ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের কর্মীরা।হোয়াইট হাউসের প্রেস ব্রিফিং রুম। এখান থেকে সংবাদমাধ্যমের সামনে কথা বলেন প্রেসিডেন্ট।হোয়াইট হাউস চত্বরের কেন্দ্রীয় ভবন হলো এক্সিকিউটিভ রেসিডেন্স। এটি মূলত ওয়েস্ট ও ইস্ট উইংয়ের মাঝখানে অবস্থিত।এই ভবনে আছে সবুজ, নীল ও লাল কক্ষ। এসব কক্ষের জানালার পর্দা, মেঝের কার্পেটসহ গৃহসজ্জার সামগ্রীর রং কক্ষের নাম অনুসারে হয়ে থাকে।একই ভবনের তৃতীয় তলায় আছে প্রেসিডেনশিয়াল বেডরুম স্যুইট। এখানে আছে প্রেসিডেন্ট ও ফার্স্ট লেডির ব্যক্তিগত শোবার ঘর, আরেকটি ছোট শোবার ঘর এবং সাজসজ্জার ঘর।এক্সিকিউটিভ রেসিডেন্সের পুবদিকে দ্বিতল ভবনটি হলো ইস্ট উইং। ভবনের দ্বিতীয় তলায় আছে ফার্স্ট লেডির দপ্তর।এ ছাড়া এই ভবনে আছে একটি পারিবারিক থিয়েটার হল, যেখানে প্রেসিডেন্ট ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা দিনের যেকোনো সময় নিজেদের পছন্দের সিনেমা উপভোগ করতে পারেন।এক্সিকিউটিভ রেসিডেন্সের ফার্স্ট ফ্লোরে আছে ক্রস হল। এটি হোয়াইট হাউসের সবচেয়ে প্রশস্ত হলওয়ে। ক্রস হল স্টেট ডাইনিং রুম এবং ইস্ট রুমের সঙ্গে এক্সিকিউটিভ রেসিডেন্সের সংযোগ স্থাপন করেছে।

READ  সৌদি আরবে কাল রোজা শুরু

admin

Read Previous

অবৈধ দখলমুক্ত করে জায়গা দখলে নিল চসিক

Read Next

ফেসবুক আইডি হ্যাক হলে কি করবেন!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *