• জুন ১৬, ২০২১

ববি শিক্ষার্থীদের আবিষ্কার, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীর জন্য ‘টকিংগ্লাস’

দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী মানুষের জন্য ‘টকিংগ্লাস’ আবিষ্কার করেছেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) তিন শিক্ষার্থী। এটি অন্ধ মানুষের জন্য একটি লাইভ শোনার যন্ত্র যা ব্যক্তির সামনে সমস্ত লেখা পড়তে পারে, যে কোন বস্তু শনাক্ত করতে পারে।

এই নতুন উদ্ভাবনের অনুরূপ কোন ডিভাইস বা প্রযুক্তি, জাতীয় বা আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এখন পর্যন্ত আবিষ্কার হয়নি বলে দাবি করেছেন তারা।

বাংলাদেশ সরকারে আইসিটি বিভাগের এটুআই (A2I) এর ডিজঅ্যাবিলিটি চ্যালেঞ্জ ফান্ডে ২০১৮ সালে এই প্রকল্পটি গৃহীত হয়।

টকিংগ্লাস উদ্ভাবক টিমের নেতৃত্বে ছিলেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০১৩-১৪ সেশনের শিক্ষার্থী সোহেল মাহমুদ, রিপন চন্দ্র দাস এবং ২০১৭-১৮ সেশনের শিক্ষার্থী বিপুল মণ্ডল। টিম টকিং গ্লাসের সুপারভাইজার ছিলেন কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রাহাত হোসাইন ফয়সাল এবং কো-সুপারভাইজার সহকারী অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান রাজু।

২ বছর পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে এই প্রযুক্তির কার্যকারী ব্যবহারে সফল হন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক টিম।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ও ইন্টারনেট অব থিংস (আইওটি) প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে এই টকিংগ্লাসে। ব্যবহারকারীরা এটা গগলস বা চশমা হিসাবে ব্যবহার করবে। চোখের সামনে লেখার ওপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করা চশমায় সংযুক্ত থাকবে ক্যামেরা । ডিভাইসটি একটি স্থির চিত্র নিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে চিত্রের লেখা ব্যবহারকারীকে পড়ে শুনাবে। একজন স্বাভাবিক মানুষ যেভাবে বই পড়তে পারেন ঠিক একইভাবে উপযুক্ত গতিতে শুনতেও পারবেন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ব্যবহারকারী । ভয়েস কমেন্টের মাধ্যমে ছবি সংক্রান্ত যে কোন তথ্য সেভ করে রাখা যাবে। এই চশমা

ব্যবহারকারীর সামনে কোন ব্যক্তি বা বস্তু থাকলে নামসহ শনাক্ত করতে পারবে এবং তাৎক্ষণিকভাবে তা জানিয়ে দেবে ব্যবহারকারীকে।

প্রাথমিকভাবে টকিংগ্লাসটিতে মোট ৬ টি ফিচার যুক্ত করা হয়েছে। ফিচার ৬ টি হলো- অপটিক্যাল ক্যারেক্টার রিকগনিশন (ওসিআর), ফেইস রিকগনিশন, অবজেক্ট ডিটেকশন, অবজেক্ট রিকগনিশন, কারেন্সি রিকগনিশন, ডিরেকশন ডিটেকশন, লোকেশন আইডেনটিফিকেশন। এটি মানুষের চেহারা চিহ্নিতকরণ এবং পূর্ব-পশ্চিম, উত্তর-দক্ষিণসহ বিভিন্ন দিক নির্ণয়, কোন বস্তু দেখলে তার নামসহ চিহ্নিতকরণ, বাংলা ইংরেজি বই পড়া থেকে শুরু করে কোনটা কত টাকার নোট তাও নির্ণয় করতে পারবে।

READ  মোবাইল ইন্টারনেট গতিতে উগান্ডারও পেছনে বাংলাদেশ

টকিংগ্লাসেরর উদ্ভাবক কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী সোহেল মাহমুদ বলেন, আমার ইচ্ছা এই ডিভাইসে আরও সুন্দর কিছু ফিচার যুক্ত করে খুব শিগগিরই প্রত্যেক দৃষ্টি প্রতিবন্ধী মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়া। ডিভাইসটি ব্লাইন্ড হেলপার হিসেবে কাজ করবে। যখন একজন অন্ধ ব্যক্তির কাছে কোন মানুষ থাকবে না তখনো ওই ব্যক্তি নিজেকে স্বাবলম্বী ভাবতে পারবে। সে নিজ থেকে পথ তৈরি

করতে পারবে অন্যের ওপর নির্ভরশীলতা কমে যাবে। শুধু যে একজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী মানুষ ব্যবহার করবে তা নয়, বরং একজন স্বাভাবিক মানুষও ব্যবহার করতে পারবে। তার একাকিত্বের সময় সে গান শুনতে পারবেন, অন্য ব্যক্তির সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন। এর ইন্টারনাল কার্যক্রম হলো এই ডিভাইস থেকে একটা পিকচার নিয়ে ওই পিকচারটি প্রসেস করে অডিও হিসেবে ইউজারকে শুনিয়ে দেবে।

টিম টকিংগ্লাসের সুপারভাইজার কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রাহাত হোসাইন ফয়সাল জানান, ব্লাইন্ড পিপলদের জন্য এই চশমাটি তৈরি করতে আমাদের দুই বছর ধরে কাজ করতে হয়েছে। সাধারণ মানুষ জীবনকে যেভাবে উপভোগ করে এই চশমা ব্যবহার করলে একজন অন্ধ মানুষও একইভাবে জীবনকে উপভোগ করতে পারবে। নরমাল হিউম্যানের মতোই তারা ফিল করতে পারবে। এটা মানুষকে আইডেনটিফাই করবে। আমরা এখানে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ব্যবহার করেছি।

Pial

Read Previous

মানুষ কোন পর্যায়ে গেলে আত্মহত্যা করে সেটা অনুভব করেছি: সাকিব

Read Next

কক্সবাজারসহ ১১ জেলার পর্যটন কেন্দ্র বন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *